আজ সোমবার, ১৯ Jul ২০২১, ০৩:১৮ পূর্বাহ্ন

Logo
সংবাদ শিরোনাম:
লক্ষ্মীপুরে ১৭দিনে করোনায় মৃত্যু ৭ ,আক্রান্ত ৭৭৭জন লক্ষ্মীপুরে যুবলীগ নেতা ও ইউপি চেয়ারম্যান আহসান উল্যাহ হিরন গ্রেপ্তার নভেম্বরে এসএসসি ও ডিসেম্বরে হতে পারে এইচএসসি পরীক্ষা: শিক্ষামন্ত্রী লঞ্চে যাত্রীর চাপ, স্বাস্থ্যবিধি উধাও লক্ষ্মীপুরে ৬ ইউপি চেয়ারম্যানের শপথ গ্রহন লক্ষ্মীপুরে স্বেচ্ছাসেবী সংগঠনের মাঝে অক্সিজেন সিলিন্ডার বিতরন বৃহস্পতিবার থেকে চলবে গণপরিবহন, খুলবে দোকানপাট লক্ষ্মীপুরে ‘খুঁজে খুঁজে সহায়তা পৌঁছে দিচ্ছেন সাংবাদিক জয়’ শিরোপা অবশেষে মেসির আর্জেন্টিনার ঠাকুরগাঁওয়ে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনের মামলায় সাংবাদিক তানুকে গ্রেপ্তার,মুক্তির দাবী
লক্ষ্মীপুরে প্রতিবন্ধি শিশুকে ধর্ষনের চেষ্টা, ৫০ হাজার রফাদফা,পুলিশ সুপারের হস্তক্ষেপে অভিযুক্ত আটক

লক্ষ্মীপুরে প্রতিবন্ধি শিশুকে ধর্ষনের চেষ্টা, ৫০ হাজার রফাদফা,পুলিশ সুপারের হস্তক্ষেপে অভিযুক্ত আটক

নিজস্ব প্রতিবেদক:

লক্ষ্মীপুর পৌরসভার পশ্চিম লক্ষ্মীপুরে ৭ বছরের বাকপ্রতিবন্ধি শিশুকে ধর্ষনের চেষ্টার অভিযোগ উঠেছে একই এলাকার সফিউল্যাহ নামে এক ব্যাক্তির বিরুদ্ধে। এ ঘটনায় বৃহস্পতিবার দুপুরে স্থানীয়ভাবে বেঁড়িরমাথা নামক এলাকায় ১৫নং ওয়ার্ড কাউন্সিলরের কার্যালয়ে পুলিশ ও  সংরক্ষিত নারী কাউন্সিলরের উপস্থিতিতে এক শালিস বৈঠকের আয়োজন করে। কিন্তু ১৫নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর আনোয়ার হোসেন শাহী ওই বৈঠকে উপস্থিত ছিলেন না।  শালিস বৈঠকে অভিযুক্ত সফি উল্যাহকে ৫০ হাজার টাকা জরিমানা ও সবার কাছে নিজের অপরাধের জন্য ক্ষমা চেয়ে ছাড়া পান অভিযুক্ত।

এ নিয়ে স্থানীয়দের মধ্যে চরম ক্ষোভ দেখা দেয়। বিষয়টি জানার পর পুলিশ সুপার ড. এএইচএম কামরুজ্জামানের নির্দেশে ওই অভিযুক্ত সফি উল্যাহকে আটক করে পুলিশ।

স্থানীয় এলাকাবাসী জানায়, সফিউল্যাহ এলাকায় খরাপ চরিত্রের লোক হিসেবে সবাই তাকে চিনে। বুধবার বিকেলে বাকপ্রতিবন্ধি ৭ বছরের শিশুকে চকলেটের প্রলোভন দেখিয়ে নিজ ঘরে ডেকে নেয়। পরে তাকে ধর্ষনের চেষ্টা করে। এক পর্যায়ে ওই শিশুর চেঁচামেচি ও স্থানীয়দের সন্দেহ হয়। পরে সফিউল্যাহ পালিয়ে যায়।

বৃহস্পতিবার দুপুরে সফিউল্যাহকে অবরুদ্ধে করে পুলিশকে খবর দেয় স্থানীয়রা। পরে সদর থানার এসআই ইমরান হোসেনসহ কয়েকজন পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে অভিযুক্ত সফি উল্যাহকে আটক করে জিজ্ঞাসাবাদ করে। স্থানীয় সংরক্ষিত নারী কাউন্সিলর রাহিমা বেগম ও পুলিশের উপস্থিতিতে ৫০ হাজার টাকা জরিমানা ও অপরাধের ক্ষমা চেয়ে ছাড়া পান বলে জানান স্থানীয়রা। পরে পুলিশ ঘটনার কিছুক্ষন পর অভিযান চালিয়ে অভিযুক্তকে আটক করে।

এ দিকে স্থানীয় সংরক্ষিত নারী কাউন্সিলর রাহিমা বেগম জানান, পুলিশ তাকে ঘটনাস্থলে আসতে অনুরোধ করলে তিনি আসেন। শালিস বৈঠকের বিষয়টি তিনি জানান না বলে জানান। তবে ওই শিশুকে সফিউল্যাহ ৫০ হাজার টাকা দেয়ার বিষয়টি স্বীকার করেন।

অপরদিকে ১৫নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর আনোয়ার হোসেন শাহী জানান, বর্তমানে তিনি ব্যাক্তিগত কাজে ঢাকায় রয়েছেন। তবে বাকপ্রতিবন্ধি শিশুকে সফিউল্যাহ ধর্ষনের চেষ্টা করছেন বলে জানান তিনি। এ ঘটনার সুষ্ঠ তদন্ত করে অভিযুক্ত সফিউল্যাহর বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়ার দাবী জানান তিনি।

সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা একেএম আজিজুর রহমান মিয়া  বলেন, সফিউল্যাহকে আটক করা হয়েছে। এ বিষয়ে তদন্ত করা হচ্ছে। যদি ঘটনার সত্যতা পাওয়া যায়, তাহলে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে। এ বিষয়ে ছাড় দেয়া হবেনা।


© স্বত্ব ২০২০ | About-US | Privacy-PolicyContact