আজ রবিবার, ২০ Jun ২০২১, ১২:৪৮ পূর্বাহ্ন

Logo
সংবাদ শিরোনাম:
বিএনপি এখন অস্তীত্বহীন,জনরায়কে ভয় পায় বলে নির্বাচনে আসেনা: জাহাঙ্গীর কবির নানক করোনা আরো ৫৪জনের মৃত্যু,শনাক্ত ৩৮৮৩ আলোচিত ইসলামি বক্তা ত্ব-হা ব্যক্তিগত কারণে আত্মগোপনে ছিলেন: পুলিশ জামিনে মুক্তি পেলেন নিপুণ রায় চৌধুরী লক্ষ্মীপুরের মতিরহাটে হচ্ছে নতুন লঞ্চঘাট লক্ষ্মীপুরে প্রধানমন্ত্রীর উপহার ৫শ ঘর উদ্বোধনের অপেক্ষায় জেলেকে পিটিয়ে হত্যার অভিযোগ, চেয়ারম্যানসহ ২৭জনকে আসামী করে মামলা বিএনপি আসলে ভালো হতো, নির্বাচনে কোন অনিয়ম হলে ভোট বন্ধ হবে : সিইসি জনবল সংকটে বেহাল লক্ষ্মীপুরে রায়পুর হ্যাচারী, উৎপাদন ব্যাহত লক্ষ্মীপুর-২ আসনে উপ-নির্বাচন: জমে উঠেছে প্রচার-প্রচারনা,নানা অভিযোগ
রায়পুরে দৃষ্টিপ্রতিবন্ধী পরিবারকে দোকান ও অর্থ দিলেন জেলা প্রশাসক

রায়পুরে দৃষ্টিপ্রতিবন্ধী পরিবারকে দোকান ও অর্থ দিলেন জেলা প্রশাসক

রায়পুর (লক্ষ্মীপুর) প্রতিনিধি

রায়পুরের ৫ দৃষ্টি প্রতিবন্ধী পরিবারকে নগদ সহায়তা ও দোকান ঘর করে দিলেন লক্ষ্মীপুরের জেলা প্রশাসক আনোয়ার হোসাইন আকন্দ। তিনি বুধবার (৫ মে) দুপুরে উপজেলার কেরোয়া ইউনিয়নের লামছরি গ্রামস্থ মাইনুদ্দিন বেপারী বাড়িতে উপস্থিত হয়ে এ সহায়তা প্রদান করেন।

একই পরিবারের নারী ও শিশুসহ ৫ জন দৃষ্টিপ্রতিবন্ধী কষ্টে জীবনযাপন করছে এমন খবর পেয়ে ছুটে এসেছেন বলে জানিয়েছেন জেলা প্রশাসক। ৩ দিন আগে এ পরিবারকে ৩০ কেজি করে চাল দিয়ে আসেন রায়পুরের উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সাবরীন চৌধুরী। পরিবারটির ৫ সদস্যকে প্রতিবন্ধী ভাতা কার্ডের ভাতা পাচ্ছেন বলে নিশ্চিত করেছেন ইউপি সদস্য আরিফুর রহমান।

সংশ্লিষ্টদের সঙ্গে আলাপ করে জানা যায়, হাফেজ মোঃ ইসমাইল (৫৫) একজন দৃষ্টিপ্রতিবন্ধী। তাঁর ৩ ছেলে রহমত উল্যা (৩৫), আয়াত উল্যা (৩০) ও নেয়ামত উল্যা (২০) জন্মগতভাবেই অন্ধ। একই অবস্থা ইসমাইলের বড় বোন আমেনা বেগমের (৬০)। তাঁর মা-বাবাও দৃষ্টিপ্রতিবন্ধী অবস্থায় মারা যান প্রায় ১৫/১৬ বছর আগে। আয়াত উল্যার ৬ বছরের কন্যা রাবেয়াও জন্মগত দৃষ্টিপ্রতিবন্ধী।

দৃষ্টিপ্রতিবন্ধী হাফেজ ইসমাইল হোসেন বলেন, জেলা প্রশাসক ও ইউএনও সাহেবের এ মহানুভবতায় আমরা আপ্লুত। প্রধানমন্ত্রীর উপহার হিসেবে নগদ টাকা সহায়তার জন্য বঙ্গবন্ধু কন্যার প্রতিও কৃতজ্ঞতা। অন্ধকার জীবনে দোকান ঘরটি আমাদের আশার আলো হিসেবে কাজ করবে।

লক্ষ্মীপুরের জেলা প্রশাসক আনোয়ার হোসাইন আকন্দ বলেন, পরিবারটির দুর্দশার কথা জানতে পেরে প্রধানমন্ত্রীর উপহার হিসেবে নগদ টাকা সহায়তা প্রদান করা হয়েছে। এ পরিবারকে একটি দোকান করে তাতে বিক্রয়ের জন্য মালামাল ক্রয় করে দেওয়া হবে। দোকানটির নির্মাণ কাজ দেখে গেলাম। আশা করি তারা দোকানের আয় থেকে নিজেদের অভাব মেটাতে পারবে।


© স্বত্ব ২০২০ | About-US | Privacy-PolicyContact