আজ রবিবার, ১৮ Jul ২০২১, ০৮:৪৫ পূর্বাহ্ন

Logo
সংবাদ শিরোনাম:
লক্ষ্মীপুরে ১৭দিনে করোনায় মৃত্যু ৭ ,আক্রান্ত ৭৭৭জন লক্ষ্মীপুরে যুবলীগ নেতা ও ইউপি চেয়ারম্যান আহসান উল্যাহ হিরন গ্রেপ্তার নভেম্বরে এসএসসি ও ডিসেম্বরে হতে পারে এইচএসসি পরীক্ষা: শিক্ষামন্ত্রী লঞ্চে যাত্রীর চাপ, স্বাস্থ্যবিধি উধাও লক্ষ্মীপুরে ৬ ইউপি চেয়ারম্যানের শপথ গ্রহন লক্ষ্মীপুরে স্বেচ্ছাসেবী সংগঠনের মাঝে অক্সিজেন সিলিন্ডার বিতরন বৃহস্পতিবার থেকে চলবে গণপরিবহন, খুলবে দোকানপাট লক্ষ্মীপুরে ‘খুঁজে খুঁজে সহায়তা পৌঁছে দিচ্ছেন সাংবাদিক জয়’ শিরোপা অবশেষে মেসির আর্জেন্টিনার ঠাকুরগাঁওয়ে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনের মামলায় সাংবাদিক তানুকে গ্রেপ্তার,মুক্তির দাবী
কোরবানীর পশু: ব্যাপারী আসছেনা,দু:চিন্তায় খামারীরা

কোরবানীর পশু: ব্যাপারী আসছেনা,দু:চিন্তায় খামারীরা

নিজস্ব প্রতিবেদক:

লক্ষ্মীপুরে চাহিদার চেয়েও অতিরিক্তি কোরবানীর পশু মজুদ রয়েছে। কিন্তু কোরবানীর পশুর চাহিদা নিয়ে সমস্যা না থাকলেও করোনা মহামারির প্রাদুর্ভাবে উপযুক্ত দাম পাওয়া নিয়ে শংকায় রয়েছেন খামার মালিকরা। পাশাপাশি ভারতীয় পশু দেশে ডুকলে আরো ক্ষতির আশংকা খামারীদের। জেলার সাড়ে তিন হাজার খামারী কোরবানীর পশু নিয়ে দু:চিন্তায় পড়েছেন। প্রতিবছর কোরবানীর আগে খামার থেকে গরু কিনে নিতে ব্যাপারীরা। কিন্তু এবার খামারে আসছেন কোন ব্যাপারী। এতে করে করে গরু নিয়ে বেচা-কিনা নিয়ে হতাশ খামার মালিকরা।

জেলা প্রাণীসম্পদ অধিদপ্তর জানায়,লক্ষ্মীপুরে কোরবানীর জন্য পশুর চাহিদা রয়েছে প্রায় ৭০হাজার। জেলার ৫টি উপজেলায় সাড়ে তিন হাজার খামার রয়েছে। আর এসব খামারের পাশাপাশি ব্যাক্তিগতভাবে পালন করা হচ্ছে পশু। চাহিদার তুলনায় আরো বেশি কোরাবানীর পশু রয়েছে বলে দাবী করেন প্রাণী সম্পদ বিভাগ। কিন্তু পশুর কোন ঘাটতি না থাকলেও করোনার কারনে কোরবানীর পশুর হাট-বাজার বসবেনা কিনা,তাও নিশ্চিত নয়। আর বাজার বসলোও পশু বেচা-কিনা আগের মত না হওয়ার আশংকা করছেন খামার মালিকরা।

চররুহিতার খামার মালিক নাছির উদ্দিন,আজিজ উদ্দিন,তোফায়েল আহমদ ও মানিক মিয়া জানান, করোনা মহামারি ও লকডাউনের কারনে গরু বাজারে উঠানো যাচ্ছেনা। পাশাপাশি ব্যাপারীও আসছেনা। কয়েকদিন পরে কোরবানীর ঈদ। কিন্ত করোনার ভয়ে কেউ পশু নিতে আগ্রহ নেই। কোরবানীর সময় গরু বিক্রির আশায় দীর্ঘদিনদিন ধরে লালন পালন করা হচ্ছে পশু। কিন্তু সব শেষ হয়ে গেছে।

এটার ওপর সংসার। গো খাদ্য ও পরিচর্যার খরচ এ বছর বেশী হয়েছে। পাশাপাশি ভারতীয় গরুর প্রবেশ নিয়ে চিন্তার শেষ নেই খামার মালিকদের। তাদের অভিযোগ, কোন অবস্থাতেই এই করোনার ভেতর ভারতীয় পশু যেন প্রবেশ করতে দেয়া না হয়। যদি ভারতীয় গরু দেশে প্রবেশ করলে দেশীয় খামার মালিকরা পথে বসার অবস্থায় হবে। কিন্তু প্রতিবছর কোরবানী উপলক্ষে বিভিন্ন এলাকা দিয়ে ভারত থেকে হাজার হাজার গরু ও মহিষ আসে লক্ষ্মীপুরে। এ কারনে খামারীরা গরুর উপযুক্ত দাম পাওয়া নিয়ে রয়েছেন দু:চিন্তায়। পশু বিক্রি না হওয়ায় দু:চিন্তায় পড়েছেন তারা।

সদর উপজেলা প্রাণীসম্পদ কর্মকর্তা ডা. মো. যোবায়ের হোসেন জানান, ‘জেলায় এবার সাড়ে তিন হাজার খামারির প্রায় ৭০ হাজার গরু কোরবানির জন্য প্রস্তুত রয়েছে। তবে চলমান লকডাউনে গরু বিক্রি নিয়ে খামারিদের মাঝে শঙ্কা দেখা দিয়েছে। তবে এ শঙ্কা কাটাতে সরকারি-বেসরকারি উদ্যোগে অনলাইন প্লাটফর্মে গরু বেচা-কেনার ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে। এক্ষেত্রে গণমাধ্যমের সহায়তাও কামনা করেন এ কর্মকর্তা। চররুহিতার খামার মালিক তোফায়েল আহমদ পাটওয়ারী কোরবানীর পশু লালন-পালন করছে।


© স্বত্ব ২০২০ | About-US | Privacy-PolicyContact