আজ সোমবার, ২০ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০৮:০৯ পূর্বাহ্ন

Logo
সংবাদ শিরোনাম:
লক্ষ্মীপুরে চারসন্তানসহ মায়ের বিষপানে আত্মহত্যার চেষ্টা বসতভিটি বিক্রি না করায় মুক্তিযোদ্ধা লাঞ্চিত,প্রতিবাদে বিক্ষোভ একাদশ-দ্বাদশের ফল মিলিয়ে এইচএসসির ফলাফল লক্ষ্মীপুরে চারদিন পর দুই সন্তান ও মায়ের খোঁজ মিলেছে লক্ষ্মীপুরে নদী ভাঙ্গন রোধে বাঁধ উদ্বোধন করেছেন এমপি নুরউদ্দিন চৌধুরী নয়ন লক্ষ্মীপুরে মেঘনার ভয়াবহ ভাঙ্গনে মাটি চাপা পড়ে নিখোঁজ-১,জীবিত উদ্ধার -৩ প্রধানমন্ত্রীর জন্মদিন ঘিরে ‘থ্যাংক ইউ পিএম’ ক্যাম্পেইন ডিসেম্বরের মধ্যে আরো ১০ কোটি মানুষ টিকা পাবেন: স্বাস্থ্য সচিব লক্ষ্মীপুরে টিউবওয়েল বসাতে গিয়ে রশি ছিড়ে শ্রমিকের মৃত্যু লক্ষ্মীপুর জেলা আনসার ও গ্রাম প্রতিরক্ষা বাহিনীর প্রশিক্ষণার্থীর মধ্যে সনদ বিতরন
আফগানিস্তানে এক গনিকে সরিয়ে ক্ষমতার চেয়ারে আরেক গনি

আফগানিস্তানে এক গনিকে সরিয়ে ক্ষমতার চেয়ারে আরেক গনি

অনলাইন ডেস্ক:

ক্ষমতার হস্তান্তর হয়ে গেল আফগানিস্তানে। তালেবান নেতাদের সঙ্গে মাত্র ৪৫ মিনিট বৈঠকের পরেই প্রেসিডেন্ট পদ থেকে পদত্যাগ করলেন আশরাফ গনি। তাঁর জায়গায় এবার আফগানিস্তানের প্রেসিডেন্ট হতে পারেন আরেক গনি, মোল্লা আব্দুল গনি বরাদর। বর্তমানে আফগানিস্তানে তালেবানের প্রধান তিনি। রবিবার সকালে আশরাফ এবং যুক্তরাষ্ট্রের কূটনীতিবীদদের সঙ্গে সমঝোতা করতে তিনিও প্রেসিডেন্টের বাসভবনে হাজির ছিলেন। খবর আনন্দবাজারের।

শনিবার রাতে উত্তরের মাজার-ই-শরিফ দখলের পর থেকেই কাবুলের পতনের ঘণ্টা বাজতে শুরু করেছিল। রবিবার সকালে জালালাবাদ দখল করে নেয় তালেবান। তারপর রাজধানী কাবুলেও দলে দলে প্রবেশ করতে শুরু করে তারা। যদিও দলীয় নেতৃত্বের নির্দেশে কাবুলে ঢোকার মুখেই থমকে যেতে হয় তাঁদের। এরপর সরাসরি আশরাফ এবং যুক্তরাষ্ট্রের কূটনীতিবিদদের সঙ্গে সমঝোতা চান বলে দাবি করেন তালেবান নেতৃত্ব। জানিয়ে দেন, গায়ের জোরে কাবুল দখল করতে চান না তাঁরা। শান্তিপূর্ণ ভাবে ক্ষমতার হস্তান্তর চান।

এর পরেই মার্কিন কূটনীতিবিদ এবং ন্যাটো প্রতিনিধিদের সঙ্গে জরুরি বৈঠক করেন আশরাফ। তারপর বৈঠকের জন্য আমন্ত্রণ জানানো হয় তালেবান নেতৃত্বকে। সেই মতো মোল্লা আবদুল গনি বরাদরের নেতৃত্বে প্রেসিডেন্টের বাসভবনের উদ্দেশে রওনা দেয় তালিবানের একটি প্রতিনিধি দল। সেখানে তাঁদের হাতে ক্ষমতা হস্তান্তর করেন আশরাফ। নতুন তালেবান অন্তর্বর্তী সরকারের প্রেসিডেন্ট নিযুক্ত হন তালেবান সংগঠনের প্রধান।

১৯৯৪ সালে তালেবান আন্দোলনের হোতাদের মধ্যে অন্যতম এই মোল্লা আবদুল গনি বরাদর। ২০০১ সালে যুক্তরাষ্ট্রের আফগানিস্তানের দখল নেওয়ার পর, যুক্তরাষ্ট্র বিরোধী যে আন্দোলন শুরু হয়, তার চালকের আসনে ছিলেন গনি। ২০১০ সালে আমেরিকা এবং পাকিস্তানের যৌথ অভিযানে করাচিতে ধরাও পড়েন তিনি। তারপর থেকে সেভাবে জনসমক্ষে দেখা যায়নি তাঁকে। কিন্তু ২০১২ সালে আফগান সরকার যে সমস্ত তালেবান বন্দিদের মুক্তি নিয়ে উদ্যোগী হয়, তাতে গনির নাম একেবারে উপরের দিকে উঠে আসে। সে বছর ২১ সেপ্টেম্বর গনিকে মুক্তি দেয় পাকিস্তান।যদিও তালেবান তা স্বীকার করে ২০১৮ সালে। তারপর থেকেই তাঁর সঙ্গে শান্তি স্থাপন নিয়ে আলোচনা শুরু করতে উদ্যোগী হয় তৎকালীন আফগান সরকার। যুক্তরাষ্ট্র দাবি করে, তাদের অনুরোধেই গনিকে ছেড়েছে পাকিস্তান।

গত জুলাই মাসে চীনা পররাষ্ট্রমন্ত্রী ওয়াং ই-র সঙ্গে সাক্ষাৎ করেন তালেবান প্রধান গনি। সেই সময় ওয়াং বলেন, ‘প্রতিবেশী হিসেবে আফগানিস্তানের সার্বভৌমত্ব, স্বাধীনতা এবং আঞ্চলিক অখণ্ডতাকে সম্মান করে চীন। আফগানিস্তানের অভ্যন্তরীণ বিষয়ে বাইরের কারও হস্তক্ষেপ একেবারেই কাম্য নয়। আফগানবাসীদের চীন বন্ধু ভাবে। আফগানিস্তানের উপর একমাত্র অধিকার সে দেশের মানুষের। তাই আফগানিস্তানের ভবিষ্যৎও তাঁরাই ঠিক করবেন। আমেরিকা এবং ন্যাটো যেভাবে তাড়াহুড়ো করে সেনা তুলে নিল, এতে তাদের ব্যর্থতাই প্রমাণিত হচ্ছে।’


© স্বত্ব ২০২০ | About-US | Privacy-PolicyContact