আজ বৃহস্পতিবার, ২১ অক্টোবর ২০২১, ১১:৫৬ পূর্বাহ্ন

Logo
সংবাদ শিরোনাম:
অসাম্প্রদায়িক চেতনায় বাংলাদেশকে গড়তে চাই: প্রধানমন্ত্রী ভারত-পাকিস্তান ম্যাচ বাতিলের দাবি লক্ষ্মীপুরে শেখ রাসেলের জন্মদিনে আলোচনা সভা ও আনন্দ মিছিল লক্ষ্মীপুরে শেখ রাসেল দিবস পালন লক্ষ্মীপুরে বাড়ি থেকে ডেকে নিয়ে জেলেকে হত্যার অভিযোগ লক্ষ্মীপুরে দ্বিতীয় শ্রেনীর ছাত্রীকে ধর্ষন ও হত্যা মামলায় একজনের মৃত্যুদন্ড লক্ষ্মীপুরে সে শিক্ষকের বিরুদ্ধে থানায় মামলা, হচ্ছেন বরখাস্ত! ওমানে ঘূর্ণিঝড়ে লক্ষ্মীপুরে তিনজনের মৃত্যুতে দিশাহারা পরিবার মাদ্রাসার ৬ শিক্ষার্থীর চুল কাটলেন শিক্ষক,সমালোচনার ঝড় মিথ্যা ও গুজবে ভরপুর সোশ্যাল মিডিয়া তবুও ভালো কিছু খুঁজছে পুলিশ-আইজিপি
দীর্ঘদিন পর মেঘনা জেলেদের জালে মিলছে ইলিশ,ফিরেছে স্বস্তি

দীর্ঘদিন পর মেঘনা জেলেদের জালে মিলছে ইলিশ,ফিরেছে স্বস্তি

নিজস্ব প্রতিবেদক,লক্ষ্মীপুর
গত ১০ দিন আগেও লক্ষ্মীপুরের মেঘনা নদীতে তেমন মাছ পাইনি জেলেরা। তিনদিন ধরে এখন জেলেদের জালে ধরা পড়ছে ইলিশ। এতে করে কর্মচাঞ্চল্যতা ফিরেছে জেলে, ঘাটের শ্রমিক, আড়তদার ও ব্যবসায়ীদের মাঝে। দামও নাগলের ভিতরে বলে দাবী করেন ব্যবাসায়ীরা। এতে স্বস্তি ফিরেছে ক্রেতা-বিক্রেতা ও আড়ৎদারদের মধ্যে। মৎস্য কর্মকর্তারা বলছেন,উপযুক্ত আবহাওয়া ও জাটকা নিধন বিরোধী অভযান সফল হওয়ায় এর সুফল মিলছে।

জেলা মৎস্য অধিদপ্তর জানায়, এ জেলায় প্রায় ৫২ হাজার জেলে রয়েছে। এদের মধ্যে নিবন্ধধিত রয়েছে ৪২ হাজার জেলে। এদের সবাই মেঘনা নদীতে মাছ শিকার করে জীবিকা নির্বাহ করে। লক্ষ্মীপুরের রামগতির আলেকজান্ডার থেকে চাঁদপুরের ষাটনল এলাকার ১শ কিলোমিটার পর্যন্ত মেঘনা নদীতে মাছ শিকার করে থাকেন এখানকার জেলেরা। এসব এলাকার ছোট-বড় প্রায় ৩০টি মাছ ঘাট রয়েছে।

সদর উপজেলার মুজচৌধুরীরহাট,মতিরহাট, লূধুয়া, আলেকজান্ডার, সাহেবেরহাট,চেয়ারম্যানঘাটসহ ছোটবড় প্রায় ৩০টি মাছঘাটে রয়েছে ক্রেতা-বিক্রেতাদের ভিড়। এসব ঘাটে ব্যস্ত সময় পার করছেন জেলে ও আড়ৎদাররা। তবে আগামী কয়েকদিনে প্রচুর পরিমান মাছ ধরা পড়বে বলে আশা করেন জেলে ও আড়ৎদাররা। গত এক সপ্তাগে আগে এক কেজি ওজনের এক হালি মাছ বিক্রি হত ৫/৭ হাজার টাকায়। এখন তা বিক্রি হচ্ছে ৩/৪ হাজার টাকায়। এছাড়া এক কেজি ওজনের নিচে এক হালি মাছ ২০০০/২৫০০ টাকা বিক্রি হচ্ছে। বর্তমানে মাছের দাম আগের তুলনায় কম।
মজুচৌধুরীরহাট এলাকার জেলে রফিকুল ইসলাম,মোহন মাঝি সরাফত উল্যাহসহ কয়েকজ জেলে জানান, মেঘনায় ইলিশ কম পাওয়া গেলেও মূলত দক্ষিনে সাগরে ধরা পড়া ইলিশ এখনো আনা হচ্ছে। মাছের আমদানি বাড়ায় দামও কিছুটা কমতে শুরু করেছে।
গত কয়েকদিনের তুলনায় নদীতে ইলিশ ধরা পড়ছে। বিশেষ করে কয়েকদিন ধরে মাছের সরবরাহ অনেক বেড়েছে। দামও নাগালের ভিতরে। সাগরে ভারতের জেলেরা মাছ শিকার করার কারনে এইখানের জেলেদের জালে মাছ ধরা পড়ছে কম। মাছ পাওয়ায় কর্মব্যস্ততাও বেড়েছে। প্রতিকেজি ওজনের মাছ বিক্রি হচ্ছে এক হাজার টাকা। আর কেজির নিচে যেসব ইলিম তা বিক্রি হচ্ছে ৭/৮শ টাকা। এতে করে কর্মচাঞ্চল্যতা ফিরেছে জেলে, ঘাটের শ্রমিক, আড়তদার ও ব্যবসায়ীদের মাঝে।

মতিরহাট এলাকার আড়ৎদার লিটন বলেন, গত পাঁচ দিন ধরেই মাছের সরবরাহ ভালো। নদীতে জেলেরাও মাছ পাচ্ছেন। পাশাপাশি আড়ৎদাররা খুশি। ৪শ’ থেকে ৭শ’ গ্রাম ওজনের ইলিশ প্রতি মণ পাইকারি বিক্রি হচ্ছে ১৭ হাজার টাকা। আর এক থেকে দুই কেজি ওজনের ইলিশ বিক্রি হচ্ছে ৪২ হাজার টাকা।

এদিকে আগামী ৪ অক্টোবর থেকে ২৬ অক্টোবর পর্যন্ত লক্ষ্মীপুরের আলেকজান্ডার থেকে চাঁদপুরের ষাটনল এলাকার ১শ কিলোমিটার জুড়ে ইলিশসহ সকল ধরনের মাছ ধরা নিষিদ্ধ ঘোষনা করেছে সরকার। মা ইলিশ রক্ষায় মৎস্য উৎপাদন বাড়াতে এ ২২দিনের নিষেধাজ্ঞা দেয়া হয়। এসময় মাছ ধরা,বিক্রি,মজুদ,আহরন করা যাবেনা। যারা সরকারের এ আইন অমান্য করবে তাদের বিরুদ্ধে জেল-জরিমানার বিধান রয়েছে।

লক্ষ্মীপুর জেলা মৎস্য কর্মকর্তা মো. বিল্লাল হোসেন বলেন,উপযুক্ত আবহাওয়া ও জাটকা নিধন বিরোধী অভযান সফল হওয়ায় এর সুফল মিলছে। বর্তমানে জেলেদের জালে ধরা পড়েছে ইলিশ। এতে খুশি জেলে,শ্রমিক ও আড়ৎদাররা। আরো প্রচুর পরিমাণ ইলিশ পাওয়া যাবে। গত বছর ইলিশের উৎপাদন লক্ষ্যমাত্রা ছিল ২০ হাজার মে.টন। এবার ৫ হাজার মে.টন বাড়িয়ে ২৫ হাজার মে.টন নির্ধারন করা হয়েছে।


© স্বত্ব ২০২০ | About-US | Privacy-PolicyContact