আজ শুক্রবার, ০৩ ডিসেম্বর ২০২১, ১০:৪৬ পূর্বাহ্ন

Logo
সংবাদ শিরোনাম:
লক্ষ্মীপুরে নির্বাচনী সহিংসতায় ইউনিয়ন ছাত্রলীগ সভাপতি নিহত ভোটকেন্দ্রে পুলিশকে টাকা দিতে মেয়রের জোরাজুরি লক্ষ্মীপুরে দুই প্রার্থীদের মধ্যে সংঘর্ষ,আহত,৬,গাড়ি ভাংচুর, ৩৯জন অস্ত্রসহ আটক লক্ষ্মীপুরে নারী দিয়ে ব্যাল্কমেলিং করে চাঁদাবাজি,এক যুবক গ্রেপ্তার দল-মত নির্বিশেষে সমন্বিতভাবে কাজ করে যাওয়ার আহ্বান প্রেসিডেন্টের লক্ষ্মীপুরে ১৫টি ইউপিতে আওয়ামীলীগের মনোনয়ন পেলেন যারা লক্ষ্মীপুর জেলা বিএনপির স্মারকলিপি প্রদান যাত্রী সেজে লক্ষ্মীপুরে অটোরিকশা চালককে হত্যার অভিযোগ বাবার বুকে অস্ত্র ঠেকিয়ে মেয়েকে অপহরণ, গ্রেপ্তার-৫, রিমান্ডের আবেদন লক্ষ্মীপুরে ট্রাকে কেড়ে নিল দুই শিক্ষাথীর প্রাণ,প্রতিবাদে সড়ক অবরোধ
বাবার বুকে অস্ত্র ঠেকিয়ে মেয়েকে অপহরণ, গ্রেপ্তার-৫, রিমান্ডের আবেদন

বাবার বুকে অস্ত্র ঠেকিয়ে মেয়েকে অপহরণ, গ্রেপ্তার-৫, রিমান্ডের আবেদন

লক্ষ্মীপুর প্রতিনিধি.
লক্ষ্মীপুর সদর উপজেলার চন্দ্রগঞ্জের দক্ষিন নুরুল্ল্যাহপুর এলাকা থেকে বাবার বুকে অস্ত্র ঠেকিয়ে তার নবম শ্রেনীতে পড়ুয়া মাদ্রাসা শিক্ষার্থী মেয়েকে অপহরন করে নিয়ে যাওয়ার সময় ৫জন অপহরনকারীকে আটক করে গনধোলাই দিয়ে পুলিশে সোর্পদ করে স্থানীয়রা। শনিবার রাত সাড়ে ১০টার দিকে দক্ষিন নুরুল্ল্যাহপুর এলাকায় এ ঘটনা ঘটে।
এ ঘটনায় মাদ্রাসা ছাত্রীর বাবা আলাউদ্দিন বাদী হয়ে চন্দ্রগঞ্জ থানায় ৫জনের নাম উল্লেখ করে আরো ৪জনকে অজ্ঞাত আসামী করে একটি মামলা দায়ের করেন। রোববার সকালে এ মামলা দায়ের করেন তিনি। পরে পুলিশ ওই মামলায় আটককৃত ৫ অপহরনকারী গ্রেপ্তার দেখানো হয়। পরে আসামীদের ব্যাপক জিজ্ঞাসাবাদের জন্য আদালতে ৫দিনের রিমান্ডের আবেদন করেছে পুলিশ। দুপুরে আদালতে এ রিমান্ডের আবেদন করেন মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা।

যাদের গ্রেপ্তার করা হয়েছে তারা হলেন, রাসেল ইসলাম, আরিফ হোসেন, শাওন ইসলাম, রবিউল ইসলাম ও মোরশেদ আলম। তাদের সবার বাড়ি চন্দ্রগঞ্জ ইউনিয়নে।

পুলিশ এবং ওই শিক্ষার্থীরা স্বজনরা জানান, জাফরপুর ফাতেহা মোহাম্মদিয়া দাখিল মাদ্রাসার নবম শ্রেনীর ছাত্রী লাকি আক্তার। দীর্ঘদিন ধরে মাদ্রাসা আসা-যাওয়ার পথে বসুদৌহিতা এলাকার মোহাম্মদ আলীর ছেলে মো. রাসেল ওই শিক্ষার্থীকে উত্ত্যাক্ত করতো। এই উত্ত্যাক্ত করার এক পর্যায়ে মেয়েকে মাদ্রাসা যাওয়া বন্ধ করে দেয় স্বজনরা। এর জের ধরে শনিবার রাত সাড়ে ১০টার দিকে রাসেলের নেতৃত্বে তিনটি সিএনজি করে ১৫/১৬জনের একদল সন্ত্রাসী ওই শিক্ষাথীর ঘরে অস্ত্রশস্ত্র নিয়ে প্রবেশ করে। এক পর্যায়ে বাবা-মাসহ পরিবারের সবাইকে অস্ত্রের মুখে জিম্মি করে শিক্ষার্থীকে সিএনজিতে তুলে নিয়ে যায়। পরে চরশাহীর দিঘীরপাড় এলাকায় পৌঁছলে স্থানীয়রা ঘেরাও করে ৫ অপহরনকারীকে অস্ত্রসহ আটক করে গনধোলাই দিয়ে পুলিশে সোর্পর্দ করে।

শিক্ষার্থীর বাবা আলাউদ্দিন জানান, বাড়িতে অনেক মেহমান ছিল। রাতের খাবার শেষে সবাই চা খাচ্ছিলেন। সাড়ে ১০টার দিকে একদল সশস্ত্র সন্ত্রাসী বাড়িতে ঢুকে পড়ে। অস্ত্রের মুখে আমার মেয়েকে তুলে নেয়ার চেষ্টা করে। আমাদের চিৎকারে আশপাশের লোকজন তাদের আটক করে গণধোলাই দেয়। পরে পুলিশ এসে তাদের আটক করে।

চন্দ্রগঞ্জ থানার ওসি একে ফজলুল হক বলেন, অস্ত্রেরমুখে মেয়েকে অপহরন করার সময় পাঁচজনকে আটক করা হয়। এসময় তাদের কাছ থেকে একটি এলজি ও দারোলা চুরি উদ্ধার করা হয়। এ ঘটনায় ৫জনসহ ৯জনের বিরুদ্ধে অস্ত্র ও অপহরন মামলা দায়ের করা হয়েছে। ওই মামলায় তাদের গ্রেপ্তার দেখানো হয়।

পুলিশ সুপার ড.এএইচএম কামরুজ্জামান বলেন, ৫ অপহরনকারী ছাড়াও এ ঘটনার সাথে আরো যারা জড়িত রয়েছে। তাদের গ্রেপ্তারের অভিযান চলছে। এ ঘটনায় অপহরন ও অস্ত্র আইনে পৃথক দুইটি মামলা দায়ের করা হয়েছে। আসামীদের জিজ্ঞাসাদের জন্য আদালতে ৫দিনের রিমান্ডের আবেদন করা হয়েছে। এ বিষয়ে কাউকে ছাড় দেয়া হবেনা।


© স্বত্ব ২০২০ | About-US | Privacy-PolicyContact